১ লিটার পেট্রোল মাত্র ৪০ টাকায়! প্লাস্টিক থেকে পেট্রোলের আবিষ্কার

নিজস্ব প্রতিবেদন : এ যেন ধুলো থেকে সোনা তৈরি করার গল্প। তাও কোনও রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়ায়। প্লাস্টিক থেকে পেট্রোল তৈরি করে এভাবেই সারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন হায়দ্রাবাদের সতীশ কুমার। তাঁর উদ্ভাবিত প্লাস্টিক থেকে ১ লিটার পেট্রোলের দাম মাত্র ৪০ টাকা। ভাবা যায়!

একদিকে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে জ্বালানি তেলের দাম। অন্যদিকে প্লাস্টিক থেকে ছড়ানো দূষণের ঠেলায় সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। এমন পরিস্থিতিতে সতীশের এমন আবিষ্কারে নড়েচড়ে বসেছে গোটা বিশ্বই। আর ৪০ টাকা লিটার পেট্রোল পেয়ে আমজনতা দুহাত তুলে আশীর্বাদ করছেন পেশায় মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়র সতীশ কুমারকে।

সতীশ জানিয়েছেন, প্লাস্টিক থেকে পেট্রোল বানানোর এই প্রক্রিয়ার নাম ‘প্লাস্টিক পাইরোলাইসিস’। রয়েছে চারটি ধাপ। প্রথমে ভ্যাকুয়ামে প্লাস্টিক গরম করতে হবে, পরের ধাপ ডিপলিমেরাইজেশন, তৃতীয় ধাপ গ্যামিফিকেশন, চতুর্থ ধাপ কন্ডেনসেশন।

সতীশের কোম্পানির নাম ‘হাইড্রক্স সিস্টেম প্রাইভেট লিমিটেড’। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প মন্ত্রকের অধীনে এই সংস্থার মাধ্যমেই তিনি পেট্রোল বানান। সতীশের কথায়, ‘প্লাস্টিকের রিসাইকেল করে ডিজ়েল, বিমানের জ্বালানি তেল, পেট্রোল তৈরি করা যাচ্ছে। ৫০০ কেজি এমন প্লাস্টিক যা আর ব্যবহার যোগ্য নয়, তা থেকে ৪০০ লিটার পর্যন্ত জ্বালানি তৈরি করা হয়েছে। এই পদ্ধতিতে আলাদা করে কোনও জল লাগে না এবং এই পদ্ধতিতে কোনও বর্জ্য জল তৈরিও হচ্ছে না। এমনকি এই পদ্ধতিতে বায়ুদূষণও হয় না। কারণ ভ্যাকিউমের মাধ্যমে এই পুরো বিষয়টা সম্পন্ন হয়।’

এখন সতীশ ২০০ কেজি প্লাস্টিক থেকে দিনে ২০০ লিটার পেট্রোল উৎপাদন করছেন। এই পেট্রোলই বাজারে ৪০ টাকা লিটার প্রতি বিক্রি হচ্ছে। কিছু শিল্প ক্ষেত্রে এই পেট্রোল ব্যবহার করাও হয়েছে। এখনও যানবাহনে হয়নি। তবে সেদিকেও নজর আছে সতীশের, কাজ চলছে। পরিবেশেকে দূষণমুক্ত করতেই তাঁর এই পদক্ষেপ বলে জানিয়েছেন সতীশ।