লোকসানে চলা ১৯ টি সরকারি সংস্থা বন্ধের মুখে

নিজস্ব প্রতিবেদন : সরকারি বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়া এবং সরকারি টেলিকম সংস্থার বিএসএনএল ইতিমধ্যেই মুখ দুমড়ে পড়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এই দুটি সংস্থা মুখ দেখছে লোকসানের। ইতিমধ্যেই এই দুটি সংস্থার অনেকেই কর্ম হারানোর পথে।

আর এরই মাঝে আরো একটি বড় দুঃসংবাদ। সর্বভারতীয় একটি সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, মোদি সরকার বন্ধ করতে চলেছে আরও ১৯ টি সরকারি সংস্থা। যাদের মধ্যে রয়েছে এইচএমটি ওয়াচ লিমিটেড, হিন্দুস্তান কেবলস, তুঙ্গভদ্রা স্টিল প্রোডাক্টস লিমিটেড, ইন্ডিয়ান ড্রাগসের মত বড় বড় সংস্থা।

এই সকল সমস্যাগুলি বন্ধের পিছনে রয়েছে মূলত দীর্ঘদিন ধরে লোকসান। দীর্ঘদিন ধরে লোকসানের সামাল দিতেই এগুলোকে বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

মঙ্গলবার লোকসভায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে সরকারের তরফ থেকে, যদিও সরকার এখনও পাকাপাকি ভাবে কোনরকম ঘোষণার পথে যায়নি।

মঙ্গলবার সংসদে কংগ্রেসের এক সাংসদের প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে এমনই জানানো হয়। প্রশ্ন ছিল যে সকল সমস্যাগুলি লোকসানের মুখে চলছে সেগুলি নিয়ে সরকারের পদক্ষেপ কি? সেগুলি কি বন্ধ করে দেওয়া হবে, নাকি বেসরকারিকরণের চিন্তাভাবনা করা হবে। তারই জবাবে উঠে আসে এই ১৯ টি সংস্থার কথা।

এই সংস্থাগুলি কতদিন ধরে লোকসানের পথে চলছে এবং সংস্থাগুলির কি অবস্থা তা সম্পর্কে বিশদে জানায় সরকার। যদিও সংস্থাগুলি বন্ধ হলে কর্মীদের জন্য কি পদক্ষেপ নেওয়া হবে সেই বিষয়ে এখনো বিস্তারিত কিছু জানায়নি সরকার।

উল্লেখ্য, সরকারি বিমান সংস্থা ইতিমধ্যেই দেউলিয়া ঘোষণা হলেও সরকারের তরফ থেকে এখনও পাকাপাকি ভাবে বন্ধের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়নি। তবে সূত্রের খবর, গত পাঁচ-ছয় মাস ধরে এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীরা বেতন পান নি।

একইভাবে সরকারি টেলিকম সংস্থার বিএসএনএলের হালও এক। বেশ কয়েক মাস ধরে এই সংস্থার কর্মীরাও বেতনের মুখ দেখেননি।