Train Middle Berth Accident: কেরলের পর বাংলা, ফের বার্থ নিয়ে কেলেঙ্কারি, উত্তরবঙ্গের ট্রেনে মাথা ফাটল যাত্রীর

Madhab Das

Published on:

নিজস্ব প্রতিবেদন : ট্রেনে সফর করার সময় কতটা সতর্ক থাকতে হয় তা পর পর ঘটে যাওয়া দুটি ঘটনার দিকে নজর রাখলেই বোঝা যায়। দিন কয়েক আগেই কেরলে একটি ট্রেনের আপার বার্থ খুলে পড়ে যাওয়ার কারণে লোয়ার বার্থে থাকা বয়স্ক এক যাত্রীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছিল। আর সেই রকমই একটি ঘটনার এবার পুনরাবৃত্তি ঘটল বাংলায়। এবার মিডিল বার্থ খুলে (Train Middle Berth Accident) ঘটে গেল দুর্ঘটনা। এমন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বহুযাত্রী রয়েছেন যারা রেলের (Indian Railways) নিরাপত্তার দিকে আঙ্গুল তুলছেন।

কেরলের পর বার্থ খুলে এমন দুর্ঘটনাটি ঘটেছে এবার উত্তরবঙ্গের জন্য চলা জনপ্রিয় ট্রেন উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেসে (Uttarbanga Express)। উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেস ট্রেনের মিডিল বার্থ খুলে এক যাত্রীর মাথায় আঘাত লাগে এবং ওই যাত্রী আহত হন। তবে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে যাত্রীদের একাংশ রেলের দিকে আঙ্গুল তুললেও মিডিল বার্থের শিকল ঠিকঠাক লাগানো হয়েছিল কিনা তা নিয়েও কিন্তু প্রশ্ন উঠছে।

উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেস ট্রেনের থার্ড এসি কামরায় এমন দুর্ঘটনাটি ঘটে। ওই ট্রেনের ৪১ ও ৪৩ নম্বর বার্থের মাঝে তিনি ছিলেন। জানা গিয়েছে, তিনি মিডিল বার্থটি খোলার সময় কোনোভাবে চেন ছিটকে তার মাথায় আঘাত করে এবং সেই কারণেই তিনি আহত হন। তবে আঘাত পাওয়ার থেকেও রেলের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তাহলো চিকিৎসা না পাওয়া। শিয়ালদা স্টেশন ঢোকার মুখে এমন দুর্ঘটনা ঘটলেও তিনি চিকিৎসা পাননি বলেই অভিযোগ করেছেন।

আরও পড়ুন 👉 Work From Home: বাড়িতে বসে কাজ করেই রোজ রোজগার হবে ২৫০০ টাকা! সুযোগ দিচ্ছে সরকার

উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেসের ঘটে যাওয়া এই ঘটনায় যে যাত্রী আহত হয়েছেন তার নাম বিমলেন্দু রায়। তিনি দিনহাটার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। কোচবিহার থেকে তিনি সস্ত্রীক শিয়ালদা আসছিলেন। এমন অবস্থায় যখন উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেস রবিবার সকালবেলায় শিয়ালদা স্টেশন ঢুকছিল সেই সময় এমন দুর্ঘটনাটি ঘটে। সেই সময় হঠাৎ তার মাথায় শিকল খুলে পড়ে যায় এবং তারপর মাথা থেকে রক্ত ঝরতে শুরু করে।

উত্তরবঙ্গ এক্সপ্রেস ট্রেনটিতে এমন ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর রেলের তরফ থেকে কোন চিকিৎসক পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। সহযাত্রী এবং টিটিইর সহযোগিতায় তাকে স্টেশন মাস্টারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় এবং তারপর নীলরতন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এমন দুর্ঘটনায় যাত্রীদের তরফ থেকে রেলের গাফিলতির দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তোলা হলেও পূর্ব রেলের তরফ থেকে যাত্রী অসাবধানতাকেই দায়ী করা হয়েছে।