Yuvashree Prakalpa Enrolment: মাসে মাসে ১৫০০ টাকা করে দিচ্ছে রাজ্য সরকার, তাও আবার ডেকে ডেকে!

Shyamali Das

Published on:

নিজস্ব প্রতিবেদন : ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সরকারে আসার পর রাজ্যের বাসিন্দাদের জন্য একের পর এক প্রকল্প চালু করা হয়েছে। যে সকল প্রকল্পের মধ্যে বেশ কিছু প্রকল্পে রাজ্যের নাগরিকদের সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়া হয়, আবার বেশ কিছু প্রকল্প রয়েছে যেগুলিতে রাজ্যের নাগরিকদের অন্যান্য বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়। আর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের এই সকল প্রকল্পের (West Bengal Government Scheme) হাত ধরে কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছেন।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের যে সকল প্রকল্প রয়েছে তার মধ্যে লক্ষ্মীর ভান্ডার, কন্যাশ্রী, রুপশ্রী, কৃষক বন্ধু, যুবশ্রী ইত্যাদি প্রকল্পের মধ্য দিয়ে সরাসরি উপভোক্তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়া হয়ে থাকে। এই সকল প্রকল্পের মধ্যেই একটি প্রকল্পের টাকা দেওয়ার জন্য এবার রীতিমতো ডাকাডাকি শুরু হয়েছে।

যে প্রকল্পের কথা বলা হচ্ছে ওই প্রকল্পের টাকা দেওয়ার জন্য আধিকারিকরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে দরজার কড়া নাড়ছেন আর জিজ্ঞেস করছেন তাদের বাড়ির কেউ প্রকল্পে আবেদন করেছিলেন কিনা। অনেকের থেকেই উত্তর মিলছে না তারা এই ধরনের কোন প্রকল্পের আবেদন করেননি আবার বহু বছর আগে করা আবেদন মনে করতে পেরে কেউ কেউ বলছেন হ্যাঁ করেছিলেন। আসলে ওই সকল আবেদন করা আবেদনকারীদের ফোনে না পেয়ে শেষমেষ আধিকারিকদের বাড়ি বাড়ি যেতে হচ্ছে।

আরও পড়ুন 👉 ভুলে যান যুবশ্রী, কন্যাশ্রী! এবার ৩৩ হাজার টাকা দিচ্ছে রাজ্য! পাবে পড়ুয়ারা

রাজ্য সরকারের মূলত যুবশ্রী প্রকল্পের (Yuvashree Prakalpa Enrolment) ক্ষেত্রে এমন ঘটনা ঘটেছে। এই প্রকল্পের মধ্য দিয়ে রাজ্যের উপভোক্তাদের প্রতি মাসে ১৫০০ টাকা করে দেওয়া হয়। কোন কোন ক্ষেত্রে আবার টাকার অংক বেশি রয়েছে। গত কয়েক দিন ধরেই এমন ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে ঝাড়গ্রামে। ঝাড়গ্রামের এমপ্লয়মেন্ট এক্সচেঞ্জের পক্ষ থেকে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

এমন পদক্ষেপ নেওয়ার পিছনে যে কারণ রয়েছে তা হলো, এই বছর ৭৫৮ জনের নাম উঠেছে চূড়ান্ত তালিকায়। যাদের মধ্যে ৩০৪ জনকে ফোনে পাওয়া গেলেও বাকি ৪৫৪ জনের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। এমন পরিস্থিতিতে গত ৭ জুলাই ছিল অনলাইনে ফর্ম পূরণের দিন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে যাতে কেউ প্রকল্পের টাকা পেতে বঞ্চিত না হন তার জন্য এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়। এছাড়াও জানা গিয়েছে, এমন ঘটনা বহুবার ঘটেছে এবং ঘটতে দেখা যাচ্ছে। মূলত যে ফোন নম্বর দিয়ে আবেদন করা হয় সেই ফোন নম্বর বাতিল করে দেওয়া অথবা অন্য কোন কারণ থাকার কারণে যোগাযোগ সম্ভব হয় না।