গ্রামের মধ্যে রাস্তাঘাটে হঠাৎ বড় বড় ফাঁটল! দুশ্চিন্তায় গ্রামবাসীরা

নিজস্ব প্রতিবেদন : দিন কয়েক ধরে বীরভূমের হাতিন গ্রামে রাস্তায় পথে ঘাটে মাঠে দেখা দিয়েছে বড় বড় ফাঁটলের। এই সকল ফাঁটলের গর্তের আকার দিন দিন বেড়েই চলেছে। কোন কোন গর্ত ১০ থেকে ২০ ফুট পর্যন্ত গভীরতা নিয়েছে। কিন্তু কেন এমন ফাঁটল তা বুঝে উঠতে পারছেন না গ্রামবাসীরা। অজানা আতঙ্কে গ্রামের অধিকাংশ মানুষ।

বীরভূমের ময়ূরেশ্বরের হাতিন গ্রামের এই রহস্যময় ফাঁটলের পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। গ্রামের বাসিন্দারা পঞ্চায়েতের দ্বারস্থ হওয়ার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য খবর দেওয়া হয়েছে জিওলজিক্যাল দপ্তরকে। কিন্তু কি কারনে এমন রহস্যময় ফাঁটল তা এখনই বলা সম্ভব হচ্ছে না কারোর পক্ষেই।

ময়ূরেশ্বর ব্লকের বিডিও অর্ণব প্রসাদ মান্না জানান, “কি কারনে এমন ফাঁটলের সৃষ্টি হয়েছে তা এই মুহূর্তে বলতে পারব না। তবে গ্রামবাসীদের থেকে যা জানতে পারছি, ৬-৭ মাস আগে ছোট ফাটলের সৃষ্টি হয়েছিল। তারপর ধীরে ধীরে এটি বর্তমানে ১০০ মিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। গ্রামের বাসিন্দাদের অনেকেই দাবি করেছেন, গ্রামের পাশে থাকা মাঠেও এরকম ফাটল রয়েছে। গ্রামবাসীদের বক্তব্য এই ফাঁটলগুলি বাড়ছে।”

গ্রামের বাসিন্দারা এরকম ফাটল দেখে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। দুশ্চিন্তায় ভুগছেন কোনরকম বড়সড় দুর্ঘটনা না ঘটে যায়। গ্রামের বাসিন্দাদের অনেকের আবার মত, আগে হয়তো কোন ভূমিকম্পের ফলে এমন ফাটল হয়েছে। আবার অনেকেই বলছেন মাটির নিচে হয়তো কোনো রকম খনিজ সম্পদ থাকতে পারে।

কুন্ডলা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সুশান্ত পাল জানান, “আমাদের কাছে যে রকম পরিকাঠামো ছিল তা দিয়ে আমরা এই ফাটল গুলি পরীক্ষা করেছি। তবে এর থেকে বেশী আর পরিকাঠামো আমাদের নেই, সে কারণে বুঝতে পারছি না কি কারনে এমন ফাটল। তবে এই ফাটল গ্রামের বাসিন্দারা রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছেন।”

তবে এমন ফাটল মাটি দূষণের কারণে নাকি অন্যকিছু তাই ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।