টলিপাড়া নিয়ে চরম অস্বস্তি শাসকদল, একঝাঁক তারকাদের নিয়ে অনুষ্ঠান কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদন : রাজ্যের তৃণমূল সরকার বরাবর টলিপাড়া নিয়ে বেশ বিশ্বাসী। ভোটের আগে বিভিন্ন সময়ে টলিপাড়ার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কাজে লাগাতে দেখা গিয়েছে তাদের। এমনকি এই টলিপাড়া থেকেই তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক অভিনেতা-অভিনেত্রীকে রাজনীতির আঙ্গিনায় নিয়ে এসেছেন। কিন্তু এই টলিপাড়াই একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে যেন অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে শাসকদলের কাছে।

দিন কয়েক আগে শাসকদলের কপালে ভাঁজ ফেলে একঝাঁক তারকা গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান। আর এরপর টলিপাড়ায় নিজেদের বিস্তার আরও গভীর করতে ঝাঁপিয়ে পড়ে গেরুয়া শিবির। তবে এসবের মাঝেই যেন মোক্ষম চাল কেন্দ্র সরকারের। জল্পনা বাড়িয়ে সোমবার রাতে কলকাতার একটি অভিজাত হোটেলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং টলিপাড়ার অভিনেতা-অভিনেত্রীদের নিয়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যাতে বিখ্যাত বিখ্যাত অভিনেতা অভিনেত্রীদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।

কারা কারা ছিলেন অনুষ্ঠানে?

অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন পাওলি দাম, আবির চট্টোপাধ্যায়, ঋতুপর্না সেনগুপ্ত, মমতা শঙ্কর, চুর্নি গঙ্গোপাধ্যায়, পরিচালক গৌতম ঘোষ, অনিক দত্ত, প্রযোজক মহেন্দ্র সোনি, নিশপাল সিং, তনুশ্রী চক্রবর্তী, চূর্ণী গঙ্গোপাধ্যায়, নিসপাল সিং রানে, অরিন্দম শীলদের মতো তারকারা। এমনকি তৃণমূল ঘনিষ্ঠ অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীকেও এই অনুষ্ঠানে দেখা যায়।

পাশাপাশি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা শঙ্কুদেব পান্ডা, বিজেপি সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, বিজেপি সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত, বিজেপি সংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন যে সকল টলিপাড়ার অভিনেতা-অভিনেত্রীরা সদ্য গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন।

আরও পড়ুন :

কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরের ডাকে ন্যাশনাল ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশনের তরফ থেকে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠান শেষে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাঙালি আবেগকে কাজে লাগিয়ে দাদাসাহেব ফালকের ধাঁচে সত্যজিত রায়ের নামে পৃথক পুরস্কার চালুর কথাও ঘোষণা করেন। যদিও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় দাবি করেছেন এই অনুষ্ঠানের সাথে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই।