বন্ধ ‘গরিব রথ’, কারণ জানালো মোদির রেল মন্ত্রক

নিজস্ব প্রতিবেদন : ২০০৬ সালে তৎকালীন রেলমন্ত্রী লালু প্রসাদ যাদবের হাত ধরে ভারতে চালু হয়েছিল ‘গরিব রথ’। মূলত দরিদ্র এবং মধ্যবিত্ত দেশের নাগরিকদের কথা মাথায় রেখে চালু করা হয়েছিল এই এসি ট্রেনের। এরপর দেখতে দেখতে কেটে গেল ১৩ টি বছর। অবশেষে গরিব রথ বন্ধের পথে হাঁটছে রেল মন্ত্রক।

কিন্তু এই গরিব রথ এসি ট্রেন বন্ধ করে দেওয়ার পিছনে কি কারণ খুঁজে বের করেছে রেল মন্ত্রক।

২০০৫ অথবা তার আগে তৈরি ট্রেন গুলির সুরক্ষা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করছে রেল। এছাড়াও ট্রেনগুলির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বিপুল খরচ বলে জানানো হয়েছে রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে।

Source

তবে এই সকল গরিব রথ ট্রেনগুলিকে বন্ধ করে এগুলিকে রুপান্তরিত করা হবে এক্সপ্রেস অথবা মেল ট্রেনে। যে সকল রুটে গরিব রথ ট্রেন গুলি চলত সেগুলিতে ইতিমধ্যেই এক্সপ্রেস এবং মেল ট্রেন বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে সূত্রের খবর। কাঠগুদাম-জম্মু ও কাঠগুদাম-কানপুর রুটে গরিব রথের বদলে চলছে এক্সপ্রেস ট্রেন।

তবে এর ফলে ট্রেনের টিকিটের দাম এক ধাক্কায় অনেকটাই বাড়তে চলেছে বলেও আশঙ্কা। যেমন গরিব রথ ট্রেনে দিল্লি থেকে বান্দ্রাগামী টিকিটের ভাড়া ছিল ১০৫০ টাকা, সেই জায়গায় এক্সপ্রেস ট্রেন চালু হলে টিকিটের দাম ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

মোটের উপর গরিব রথ ট্রেন গুলির রক্ষণাবেক্ষণে বিপুল অর্থ অপচয় এবং সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে গরিব রথ এসি ট্রেন বন্ধের সিদ্ধান্তের কথা ভাবা হয়েছে বলে সূত্রের খবর।