সত্যিই কি পেয়েছেন ডিভোর্সের নোটিশ, মুখ খুললেন নুসরত

নিজস্ব প্রতিবেদন : মাসকয়েক ধরেই অভিনেত্রী নুসরত এবং নিখিলের বিবাহ সম্পর্ক নিয়ে জল্পনা চলছিল। দুজনের এই সম্পর্কের মাঝে যশ দাশগুপ্তের আবির্ভাব জল্পনার মূল কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়ায়। আর মঙ্গলবার এই জল্পনা অন্তিম পর্যায়ে পৌঁছায়। খবর ছড়িয়ে পড়ে ‘স্ত্রী নুসরতকে শেষমেষ ডিভোর্সের নোটিশ পাঠিয়েছেন নিখিল জৈন।’

নুসরত এবং নিখিলের মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুঞ্জন শুরু হয় গত বছর অক্টোবর মাস থেকেই। সেই সময় থেকেই নিখিলের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে নুসরতের সাথে আর কোন ছবি লক্ষ্য করা যায়নি। একই পরিস্থিতি নুসরতের প্রোফাইলেও। আর এই পরিস্থিতিতেই অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের সাথে নুসরতের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়।

পাশাপাশি নিখিলের একটি পোষ্ট আরও জল্পনা বাড়ায়। যেখানে নিখিল নিজের ছবি পোস্ট করে লিখেছিলেন, “কেউ আপনার সঙ্গে যেমন ব্যবহার করবে সেটা তার কর্ম। আর আপনি তার উত্তর কীভাবে দেবেন সেটা আপনার কর্ম।” প্রশ্ন ওঠে এই বার্তা কি নুসরত ও যশকে উপলক্ষ করেই?

শোনা যাচ্ছিল গত বছর থেকেই নিখিল এবং নুসরত একসাথে থাকেন না। এবিষয়ে নুসরত অবশ্য জানিয়েছিলেন ব্যক্তিগত কারণেই তারা একসাথে না থেকে তিনি আলাদা থাকছেন। এর পরেই রাজস্থান সফরের সময় যশের সাথে সম্পর্ক নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। তবে সেই জল্পনাকেও উড়িয়ে দিতে দেখা যায় অভিনেত্রীকে। জল্পনা প্রসঙ্গে তিনি পুরাতন ছবির প্রসঙ্গ তোলেন এবং বলেন তেমন কিছু হওয়ার হলে যশের সাথে যখন ওই দুটি ছবি করেছিলাম তখনই হতে পারতো।

কিন্তু অভিনেত্রী এমনটা বললেও একাধিক জায়গায় যশ এবং নুসরত দুজনকে নিয়ে নতুন নতুন জল্পনার সৃষ্টি হয়। আর এই জল্পনার সাথে সাথেই উঠতে থাকে নানান প্রশ্ন। আর এই সকল প্রশ্নের মাঝেই এবার নিখিলের ডিভোর্স নোটিশ পাঠানোর খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই ট্রেন্ডিং হয়ে পড়ে। আর এই খবর অবশেষে মুখ খুলতেই দেখা গেল নুসরতকে।

আরও পড়ুন :

মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতি দিয়ে নুসরত এই ডিভোর্সের নোটিশ সম্পর্কিত খবরকে মিথ্যা বলে ঘোষণা করেন। তিনি জানান, “যে খবর রটেছে তার সম্পূর্ণ ভুল এবং ভিত্তিহীন। মিডিয়ার উচিত কোন খবর করার আগে সব রকম তথ্য যাচাই করার।”