বছরের নতুন দিনে ভক্তদের ভিড় সামলাতে বেগ পেতে হয় তারাপীঠে

নিজস্ব প্রতিবেদন : বাংলা হোক বা ইংরেজি, বর্ষবরণকে ঘিরে তারাপীঠে ভক্তদের মধ্যে দেখা যায় আলাদা উৎসাহ-উদ্দীপনা। দূরদূরান্ত থেকে অজস্র ভক্তের সমাগম হয় তারাপীঠে এই বিশেষ দিন গুলিতে। সারাবছর সুখে শান্তিতে কাটার প্রার্থনা এবং হালখাতার পুজো করে ব্যবসায় উন্নতির লক্ষ্যে ভক্তেরা বাংলা নববর্ষের দিন ভিড় জমান তারাপীঠে। এই দিনে তারাপীঠে এতটাই ভিড় হয় যে, রীতিমত ভিড় সামলাতে বেগ পেতে হয় মন্দির কমিটি এবং প্রশাসনকে।

চলতি বছরে নববর্ষ দেশের সাধারণ নির্বাচনের সময় হওয়াই দূর-দূরান্ত থেকে ভক্তদের সমাগম কিছুটা হলেও কম, তা হলেও বীরভূমের বিভিন্ন প্রান্তের ব্যবসায়ী থেকে অন্যান্য ভক্তদের সমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো। ব্যবসায়ীরা হালখাতার জন্য নতুন খাতা মায়ের চরণে স্পর্শ করে পুজো দিতে ভিড় জমান।

আবার সকাল থেকেই অমাবস্যা তিথি। তাই রবিবার থেকেই তারাপীঠে পর্যটকদের আসা শুরু হয়ে গিয়েছে। অমাবস্যা তিথিতে মায়ের কাছে পুজো অর্পণ করলে মোক্ষলাভ হয় বলে ভক্তদের বিশ্বাস। তারাপীঠ মন্দির কমিটির সভাপতি তারাময় মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘সোমবার ভোরে মায়ের স্নানের পর রাজবেশে সাজিয়ে পুজো ও মঙ্গলারতি হয়। সকাল সাড়ে পাঁচটা থেকেই সকল ভক্তদের জন্য গর্ভগৃহ খুলে দেওয়া হয়েছে। সন্ধ্যায় বিশেষ সন্ধ্যারতি।”