৭ রানে হারালো ৬ উইকেট, ছক্কা হাঁকিয়ে KKR-কে বাঁচালো রাহুল ত্রিপাঠি

নিজস্ব প্রতিবেদন : কথায় আছে ক্রিকেট খেলায় কখন যে পরিস্থিতির বদল ঘটবে তা কেউ বলতে পারে না। একটি বল এই খেলার পট পরিবর্তন করে দিতে পারে। যেমনটা লক্ষ্য করা গেলেও কলকাতায় বিরুদ্ধে দিল্লির দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে। যে ম্যাচটি একেবারে সহজ ম্যাচ থেকে পৌঁছে যায় হাড্ডাহাড্ডি জায়গায়। যদিও এই ম্যাচে ত্রাতা হয়ে ছক্কা হাঁকিয়ে কেকেআর-কে বাঁচালো রাহুল ত্রিপাঠী।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের এই ম্যাচে বুধবার দিল্লি এবং কলকাতার খেলায় প্রথমে ব্যাট করে দিল্লি নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করে মাত্র ১৩৫ রান। সহজ ম্যাচে জয়ের জন্য খুব সুন্দর ভাবে শুরু করতে দেখা যায় কলকাতাকে। একটা সময় যখন তারা কোন রকম উইকেট না খুইয়ে ১০০-র কাছাকাছি পৌঁছে যায়। প্রথম উইকেট পড়ে ৯৬ রানে।

৯৬ রানে প্রথম উইকেটের পতনের পর দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে ১২৩ রানে। কিন্তু এর পরেই শুরু হয় কলকাতার ‘অধঃপতন’। ১২৩ রান থেকে ১৩০ রান পৌঁছাতে কলকাতা খুইয়ে ফেলে সাত সাতটি উইকেট। খেলা পৌঁছে যায় একেবারে শেষ ওভারের শেষ প্রান্তে। শেষ দু’বলে কলকাতার সামনে বিশাল লক্ষ্যমাত্রা এসে পৌঁছায়। জেতার জন্য দরকার ৬ রান।

কলকাতার সামনে যখন শেষ দুই বলে এমন বিশাল লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে সেই সময় অপর প্রান্ত থেকে বল করার জন্য ছুটে আসছেন রবীচন্দ্রন অশ্বিন। তিনি আবার এর আগের দুটি বলে পরপর মাঠের বাইরে ফিরিয়েছেন সাকিব আল হাসান এবং সুনীল নারিনকে। রবীচন্দ্রন অশ্বিন হ্যাটট্রিক করার বল ছোঁড়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন, অন্যদিকে আবার রাহুল ত্রিপাঠী নিজের দলকে জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য মুখিয়ে।

আর এই হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে অবশ্য শেষ পর্যন্ত রাহুল ত্রিপাঠী এবং তার দল কলকাতা শেষ হাসি হাসে। রবীচন্দ্রন অশ্বিনের হ্যাটট্রিক বলে ছক্কা হাঁকিয়ে রাহুল ত্রিপাঠী কলকাতার মান সম্মান রক্ষা করলেন এবং দল পৌঁছে গেল চেন্নাই-এর বিরুদ্ধে ফাইনাল খেলার জন্য।