৫০ পয়সা, ১ টাকা সহ সমস্ত কয়েন নিয়ে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নয়া বিজ্ঞপ্তি

নিজস্ব প্রতিবেদন : বাজারে কয়েন নিয়ে দীর্ঘদিনের টানাপোড়েন। এই টানাপোড়েন মূলত শহরাঞ্চলে কম হলেও মফস্বল এলাকায় বিস্তর। শহরাঞ্চলে ছোট কয়েন চললেও, গ্রামাঞ্চলে টা চালানো একেবারে বাপের শ্রাদ্ধ।

এই টানাপোড়েনের মূলে রয়েছে মানুষের মধ্যে ভুল ধারণা। সেই ভুল ধারণা বেশিরভাগ থাবা দিয়েছে মফস্বল এলাকায়। এখানে মানুষের ধারণা ছোট ১ টাকার কয়েন বা ৫০ পয়সার কয়েন আর চলে না, এগুলি বাতিল। কিন্তু সরকারের কোনরকম নির্দেশিকা ছাড়াই এই সমস্ত কয়েনকে বাতিল করে ফেলেছে সাধারণ মানুষ।

প্রতিবারের মতো এবারও ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক এই রটনার অবসান ঘটাতে সচেষ্ট হয়েছে। একটি বিবৃতিতে তারা সাধারণ মানুষের কাছে বার্তা দিয়েছে, ৫০ পয়সা, ১ টাকা, ২ টাকা, ৫ টাকা ও ১০ টাকার বিভিন্ন সাইজ, থিম ও ডিজাইনের কয়েন এখনও সচল৷ বহু ক্ষেত্রে গুজব রটানো হচ্ছে৷ এই কয়েনগুলি গ্রহণের জন্য জনসাধারণকে আশ্বস্ত করছে আরবিআই৷

রিজার্ভ ব্যাঙ্ক সেই বিবৃতিতে বলেছে, “বিভিন্ন থিমের কয়েন বাজারে ছাড়া হয়েছে৷ বেশ কিছু কয়েন আদৌ সচল কি না, তা নিয়ে ধন্ধ দেখা দিয়েছে মানুষের মধ্যে, এরকম নানান রিপোর্ট এসেছে রিজার্ভ ব্যাংকের কাছে৷ অনেক ব্যবসায়ী, সাধারণ মানুষ নির্দিষ্ট কয়েন গ্রহণ করছেন না৷ আমাদের পরামর্শ হল, সব সাইজ, থিমের কয়েনই বাজারে বৈধ৷ অতএব কোনও ভয় নেয়৷ কোনও কয়েন বাতিল করা হয়নি৷”

কিন্তু কেউ যদি কয়েন নিতে অস্বীকার করেন তাহলে তার কি শাস্তি হতে পারে?

কয়েন নেওয়ার বিষয়ে রিজার্ভ ব্যাংকের সাধারণ মানুষদের নিশ্চিন্ত হওয়ার পরামর্শ থাকলেও পাশাপাশি অস্বীকার এর জন্য রয়েছে শাস্তির ব্যবস্থাও।

রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কোনো কয়েন একজন ভারতীয় ব্যবসায়ী বা কোন ভারতীয় নাগরিক নিতে আপত্তি করলে তার বিরুদ্ধে ১২৪(এ) ধারা অনুযায়ী দেশদ্রোহীতার অভিযোগে মামলা হতে পারে। অভিযুক্ত ব্যক্তি দোষী প্রমাণিত হলে তার ৩ বছরের জেল পর্যন্ত হতে পারে। কেউ কয়েন নিতে অস্বীকার করলে পুলিশকে খবর দিতে হবে অথবা সরাসরি ন্যাশনাল কনজুমার কমিশনের টোল ফ্রি নাম্বারে ফোন করে জানাতে হবে। সংশ্লিষ্ট ন্যাশনাল কনজ্যুমার কমিশন পুলিশকে তাৎক্ষণিক ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেবে।