জাতিবিদ্বেষের অভিযোগে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ ; উত্তেজনা উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে

বাপি অধিকারি : ঘটনার সূত্রপাত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকার জাতিবিদ্বেষকে কেন্দ্র করে। বেশ কয়েকদিন আগে বাংলা বিভাগের অধ্যাপিকা মঞ্জুলা বিরুদ্ধে জাতি বিদ্বেষের অভিযোগ তোলে পড়ুয়ারা। অভিযোগ তুলে তাকে অপসারণের দাবিও করা হয়। কিন্তু পড়ুয়াদের দাবি মানেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এরপরই আজ উত্তেজনা ছড়ায় ছাত্র আন্দোলনকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে।

উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপিকা মঞ্জুলা বেরার বিরুদ্ধে জাতিবিদ্বেষের অভিযোগ তুলে তাঁকে অপসারিত করার দাবি তুলে ওই বিভাগেরই বেশ কিছু ছাত্রছাত্রী। কিন্তু দীর্ঘ দিন পেরিয়ে গেল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ওই অধ্যাপিকার বিরুদ্ধে কোন রকমই ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখায় বাংলা বিভাগের বেশ কিছু ছাত্রছাত্রী। তারা এই বিষয় নিয়ে উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে গেলে উপাচার্য শুধুমাত্র ৪ জনের সঙ্গে দেখা করবে বলে জানানো হয়। কিন্তু বিক্ষোভরত ছাত্র ছাত্রীদের দাবি সকলের সঙ্গে দেখা করতে হবে উপাচার্যকে।

তা নিয়েই শুরু হয় বাদানুবাদ এবং যা চরমে গেলে হাতাহাতিতে পৌঁছায়। এতে মোট তিনজন আহত হয় যার মধ্যে একজন রয়েছে নিরাপত্তাকর্মী, একজন আধিকারিক ও একজন ছাত্র।পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে মাটিগাড়া থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে রয়েছে। তবে চরম উত্তেজনা রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে।

কলেজের অধ্যাপক জানান, “বিশ্ববিদ্যালয় গঠনের পথ থেকে এখনো পর্যন্ত জাতিবিদ্বেষ নিয়ে কোনো রকম ঘটনা ঘটেনি। হয়তো পড়ুয়াদের একাংশ এমনটা ভাবছেন কিন্তু তা সত্য নয়। যদি সত্য হয় তবে তার নিরপেক্ষ তদন্ত আমিও চাই। হয়তো কোন মনোমালিন্য হয়েছে। অভিযোগ দুই পক্ষের তরফ থেকেই রয়েছে। আগামী ১৬ তারিখ এই সকল অভিযোগুলি আমরা ই.সি. মিটিংয়ে তুলে ধরব। সেখানে যা পদক্ষেপ নেওয়া হবে সেটাই কার্যকরী করা হবে।”