Mobile Recharge Tariff: মোবাইল রিচার্জের খরচ বাড়তেই ফুঁসছে গোটা দেশ! নতুন বিবৃতি দিয়ে পরিষ্কার করে দিল কেন্দ্র

Shyamali Das

Published on:

নিজস্ব প্রতিবেদন : গত ৩ জুলাই থেকে মোবাইল রিচার্জের (Mobile Recharge Tariff) খরচ বেড়েছে। দেশের জনপ্রিয় ৩ বেসরকারি টেলিকম সংস্থা তাদের ট্যারিফ রেট বৃদ্ধি করেছে। আর এমন সিদ্ধান্তের পরই রীতিমতো দেশের মানুষেরা ক্ষোভে ফুঁসছেন। কেনই বা ক্ষোভ বাড়বে না, কারণ জিও, এয়ারটেল এবং ভিআই প্রত্যেক টেলিকম সংস্থার রিচার্জ খরচ ১১ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।

জিও, এয়ারটেল এবং ভিআই একসঙ্গে নিজেদের ট্যারিফ রেট বৃদ্ধি করার পর ভারতীয় মোবাইল ব্যবহারকারীরা ক্ষোভ উগরে যাওয়ার পাশাপাশি অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্র সরকারের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন। দেশের কোটি কোটি গ্রাহকদের তরফ থেকে এমন দাবি তোলার পর এবার শেষমেষ বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলল কেন্দ্র।

শুধু দেশের নাগরিকরা নন, এর পাশাপাশি দেশের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসও বিষয়টি নিয়ে সড়ক হয়েছে। আর এসবের পরিপ্রেক্ষিতে মোবাইল রিচার্জের দাম বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে বিবৃতি দেওয়া হলেও দেশের মানুষেরা কোনরকম স্বস্তি পাননি। কেননা কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে স্পষ্টভাবেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, মোবাইল সংস্থাগুলি তাদের শুল্ক নিয়ে কি সিদ্ধান্ত নেবে সেই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না কেন্দ্র। এর পাশাপাশি কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে বর্তমান মোবাইল রিচার্জের দামের সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের দামের তুলনা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন 👉 Airtel New Recharge Plan: দাম বাড়ানোর মাঝেই গ্রাহকদের স্বস্তি দিল এয়ারটেল, লঞ্চ হল নতুন রিচার্জ প্ল্যান

কেন্দ্রের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বিশ্বে যে সকল প্রধান দেশ রয়েছে সেই সকল প্রধান দেশের তুলনায় এখনো ভারতে মোবাইল রিচার্জের খরচ অনেক কম। গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় টেলি যোগাযোগ এমনই বিবৃতি দেওয়ার পাশাপাশি বিশ্বের বেশ কিছু দেশের মোবাইল রিচার্জের খরচ তুলে ধরা হয়েছে। যদিও জানানো হয়েছে, প্রায় সংস্থাগুলির উপর নজর রাখে যাতে খরচ বৃদ্ধি নির্ধারিত সীমার মধ্যে থাকে। কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে এমন বিবৃতি দেওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই যে সকল গ্রাহকরা কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে রিচার্জের খরচ কিছুটা হলেও কমতে পারে বলে আশা করেছিলেন তাদের আশা এক নিমেষে ভঙ্গ হয়েছে।

বিশ্বের উন্নত দেশগুলিতে বর্তমানে যে মোবাইল খরচ রয়েছে তা সম্পর্কে যা জানা যাচ্ছে তা হল, চীনের নাগরিকদের পরিষেবার জন্য সর্বনিম্ন খরচ করতে হয় ৮.৮৪ ডলার, আফগানিস্তানের নাগরিকদের খরচ করতে হয় ৪.৭৭ ডলার, ভুটানের নাগরিকদের খরচ করতে হয় ৪.৬৭ ডলার, বাংলাদেশের নাগরিকদের খরচ করতে হয় ৩.২৪ ডলার, নেপালের নাগরিকদের খরচ করতে হয় ২.৭৫ ডলার, পাকিস্তানের নাগরিকদের খরচ করতে হয় ১.৩৯ ডলার, আমেরিকার নাগরিকদের খরচ করতে হয় ৪৯ ডলার, অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের খরচ করতে হয় ২০.১ ডলার, দক্ষিণ আফ্রিকায় এই খরচ ১৫.৮ ডলার, ব্রিটেনে খরচ ১২.৫ ডলার।