WBSEDCL Electric Bill: ইলেকট্রিক বিলের নিয়মে বদল, নতুন পদ্ধতি চালু হলেই স্বস্তি পাবেন গ্রাহকরা

Shyamali Das

Published on:

নিজস্ব প্রতিবেদন : প্রতিদিনই বাড়িতে বাড়িতে বাড়ছে বিদ্যুতের (Electric) ব্যবহার। বিদ্যুতের ব্যবহার দিন দিন বাড়তে থাকার কারণে গোটা দেশ জুড়েই বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা। মূলত চলতি বছর গরম ও তাপপ্রবাহ মাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার কারণে বিদ্যুতের ব্যবহার অনেক বেড়ে গিয়েছে। বিদ্যুতের খরচ বেড়ে যাওয়ার কারণে স্বাভাবিকভাবেই বিদ্যুতের বিলের (Electric Bill) পিছনে খরচও অনেকটাই বেড়েছে।

বিদ্যুতের চাহিদা মেটানোর জন্য গোটা দেশ জুড়েই বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা বিদ্যুৎ সরবরাহ করে থাকে। দেশের বিভিন্ন জায়গার পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গেও সরকারি ও বেসরকারি দুই ধরনের সংস্থায় বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করে। কলকাতা এলাকার বেশিরভাগ জায়গায় যেমন CESC বিদ্যুৎ সরবরাহ করে থাকে ঠিক সেই রকমই রাজ্যের অধিকাংশ জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ বন্টন পর্ষদ (WBSEDCL)।

WBSEDCL-এর বিদ্যুৎ সরবরাহ নিয়ে রাজ্যের অধিকাংশ জায়গাতেই গ্রাহকদের মধ্যে তেমন কোন অভিযোগ না থাকলেও তাদের একটি বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ রয়েছে। যে অভিযোগটি হলো বিল পাঠানোর পদ্ধতি (WBSEDCL Electric Bill)। ডাবলুবিএসইডিসিএল মূলত একসঙ্গে তিন মাসের বিল পাঠিয়ে থাকে গ্রাহকদের। একসঙ্গে তিন মাসের বিল পাঠানোর পরিপ্রেক্ষিতে ইউনিট অনেকটাই বেশি আসে আর বিল পেমেন্টের স্ল্যাব অনুযায়ী ইউনিট যত বারে ততই বিদ্যুতের ইউনিট প্রতি দাম বেড়ে যায়।

আরও পড়ুন 👉 Biggest Durga Idol: দেশপ্রিয় পার্ক অতীত, এবার ১১১ ফুটের দুর্গা প্রতিমা তৈরি হচ্ছে রাজ্যের এই জায়গায়

এমন ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যের সাধারণ মানুষদের মধ্যে দাবি তোলা হচ্ছিল যেন প্রতি মাসে মাসে বিদ্যুৎ খরচ দেখে সেই অনুযায়ী ইউনিট হিসাব করে বিল পাঠানোর। এই বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে বেশ কিছু জায়গায় বিল পাঠানো শুরুও হয়। তবে গত জানুয়ারি মাসের রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস প্রতি মাসে মাসে বিল পাঠানোর পদ্ধতি চালু করার বিষয়টি নিয়ে জানিয়েছিলেন, প্রায় সব গ্রাহক রায় তিন মাসের বিল দিতে আগ্রহী।

রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রীর এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে প্রতি মাসে মাসে বিল পাঠানোর বিষয়টি একপ্রকার ধামাচাপা পড়ে যায়। তবে এখন বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানা যাচ্ছে, ডাবলুবিএসইডিসিএল এবার প্রতি মাসে মাসে বিদ্যুৎ বিল পাঠানোর বন্দোবস্ত করতে চলেছে। বিভিন্ন সূত্র দাবি করছে, পরবর্তী যে রিডিং দেখার সময় আসবে তখন থেকেই হয়তো এমন পদ্ধতি চালু হয়ে যেতে পারে। এমন পদ্ধতি চালু হয়ে গেলে মাসের প্রথম দিন থেকে শেষ দিন পর্যন্ত কত ইউনিট বিদ্যুৎ খরচ হয়েছে তার ওপর বিল পাঠানো হবে। যদি এমনটা চালু হয় তাহলে রাজ্যের গ্রাহকরা সত্যিই স্বস্তি পাবেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ। কেননা তাতে ইউনিট কম এলে স্ল্যাব অনুযায়ী বিদ্যুতের পেছনে কম টাকা খরচ করতে হবে।