অটোচালক থেকে মহারাষ্ট্রের নায়ক, জানুন একনাথ শিন্ডের আসল পরিচয়

নিজস্ব প্রতিবেদন : একটি বিদ্রোহ যেকোনো সরকারকে ফেলে দিতে পারে তা ফের প্রমাণ করলো মহারাষ্ট্র। যেখানে শিবসেনা, এনসিপি এবং কংগ্রেসের জোট সরকারকে বিদ্রোহের মাধ্যমে ভেঙে ফেলা হলো। তবে এই বিদ্রোহ সাধারণ মানুষদের নয়, এই বিদ্রোহ বিধায়কদের। আর এই বিদ্রোহের নায়ক হলেন একনাথ শিণ্ডে। এই একনাথ শিণ্ডে এখন দেশের রাজনীতির অন্যতম চর্চিত ব্যক্তি।

তবে এই বিদ্রোহী নেতার রাতারাতি এইভাবে এমন জায়গায় এসে পৌঁছেছেন এমনটা নয়। এমনকি বংশ-পরম্পরায় তিনি একজন রাজনৈতিক এমনটা নয়। এমন চর্চিত নেতার উত্থান এখন আলোচনার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু। এই একনাথ শিণ্ডেকে শুরু থেকে না জানলে সেটাই হবে সব থেকে বড় ভুল।

একনাথ শিণ্ডে প্রথম জীবনে ছিলেন একজন অটোচালক। তরুণ বয়সে এই নেতা মহারাষ্ট্রের সাতারা থেকে এসেছিলেন মুম্বাইতে। তারপর সেখানে এসে তিনি শিবসেনায় যোগদান করেন। ১৯৯৭ সালে রাজনীতিতে পদার্পণ করার পর তিনি শ্রমিক সংগঠন তৈরি করেন। রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার বছরেই তিনি থানে পৌরসভা থেকে জয়লাভ করেন এবং সেখানে কাজ করার দায়িত্ব দেয় শিবসেনা। দায়িত্ব পেয়েই নিজের কাজ শুরুর করেন শিণ্ডে এবং নিজের প্রতিপত্তি বৃদ্ধি করতে শুরু করেন।

২০০৪ সালে প্রথম বিধানসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন একনাথ শিণ্ডে। প্রথম থেকেই তিনি শিবসেনা প্রধান বাল ঠাকরের অনুপ্রেরণায় নিজের রাজনৈতিক মতাদর্শ তৈরি করেন। পরে বাল ঠাকরের ভাইপো রাজ ঠাকরে দল ছেড়ে চলে গেলে দলে পাকাপাকি জায়গা হয় একনাথ শিণ্ডের। ২০০৯ বিধানসভা নির্বাচনে একনাথ শিণ্ডে শিবসেনা দলনেতার দায়িত্ব পান।

অন্যদিকে বিজেপি ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত একনাথ শিণ্ডে ২০১৪ সালে বিজেপি ও শিবসেনা জোট সরকারে মন্ত্রীত্ব পেয়েছিলেন। সেই সময় থেকেই ফড়ণবীসের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে তার। ২০১৯ সালে মহা বিকাশ আগারি জোটের সরকার গঠন হওয়ার পর একনাথ শিণ্ডে নগরোন্নয়ন ও পূর্ত দপ্তরের মন্ত্রী হন। পাশাপাশি বিধানসভায় তিনি দলনেতার দায়িত্ব সামলেছেন।