একই পরিবারের ৫ সদস্যের শরীরে করোনা, বাংলায় সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৫

প্রতীকী ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন : বাংলায় করোনা আক্রান্ত একই পরিবারের ৫ সদস্য। আর এনিয়ে বাংলায় করোনা পজেটিভ সংখ্যাটা দাঁড়ালো ১৫। দিন কয়েক ধরে পশ্চিমবঙ্গে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে অনেকটাই আশা জাগছিল। এমনকি নয়াবাদের করোনা সংক্রমিত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের শরীরে কোনো সংক্রমণ না মেলায় জাগছিল স্বস্তি। কিন্তু শুক্রবার সন্ধ্যা হতেই একই পরিবারের পাঁচ সদস্যের শরীরে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মেলায় হঠাৎ করে পরিস্থিতি যেন ওলট পালট হয়ে গেল। যে পাঁচজনের শরীরে কোন ভাইরাসের সংক্রমণ মিলেছে তাদের মধ্যে আবার দুজন শিশু রয়েছে বলেও সূত্রে খবর।

জানা গিয়েছে, সম্প্রতি এক বিদেশ ফেরত যুবকের সংস্পর্শে এসেছিল ওই পরিবার। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে ৯ মাসের এক শিশু কন্যা, ৬ বছরের এক শিশু ও ১১ বছরের এক কিশোর। তারা গত ১৬ ই মার্চ দিল্লিতে একটি বিয়েবাড়ির অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। আর সেখানেই ইংল্যান্ড ফেরত এক যুবকের সংস্পর্শে আসেন। ১৭ ই মার্চ ওই যুবক অসুস্থ বোধ করলে তাকে রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তার শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়।

ঘটনার পর নদীয়া তেহট্টের ওই পরিবারকে হোম আইসোলেশনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু ওই পরিবার নির্দেশেকাকে অমান্য করে দিল্লি থেকে বিমানে করে তেহটে ফিরে আসেন বলে অভিযোগ। এরপর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই পরিবারের এক তরুণী। অভিযোগ ওই পরিবার পুরো বিষয়টিকে গোপন রেখে দেয়। এরপর চিকিৎসকের কাছে গেলে ঘটনা জানাজানি হয়। তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নেয় স্বাস্থ্য ভবন। পরিবারের ৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়। যাদের মধ্যে শুক্রবার সন্ধ্যায় ৫ জনের পজিটিভ রিপোর্ট আসে। বাকি আরও তিনজনের আবার আগামীকাল পরীক্ষা করা হবে।

ঘটনার পর তেহট্টে পৌঁছে গেছেন চারজনের একটি বিশেষ দল। তারা পুরো বিষয়টি দেখভাল করছেন। আগামীকাল প্রতিবেশীসহ ২০ জনকে কলকাতায় আনা হবে চিকিৎসার জন্য।