Rajanya Halder Engagement: ক্রাশদের মাথায় হাত! হয়ে গেল আঙটি বদল, এই সুপুরুষকে বিয়ে করবেন রাজন্যা

নিজস্ব প্রতিবেদন : তৃণমূলের একুশের মঞ্চ রাতারাতি যাদের জীবন বদলে দিয়েছে তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন রাজন্যা হালদার (Rajanya Halder)। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের (Mamata Bandopadhyay) পছন্দের রাজন্যা প্রথমবার একুশের মঞ্চে বক্তব্য রাখার সুযোগ পান। যে মঞ্চে বড় বড় নেতাদের জায়গা হয় না, সেই মঞ্চে বক্তব্য রাখার সুযোগ পেতেই রীতিমতো সবার নজর কেড়ে নেন তিনি। তার ঝাঁঝালো বক্তব্যে মঞ্চের সামনে বসে থাকা নেতাকর্মী, সমর্থকরা যেমন আপ্লুত হয়ে ওঠেন, ঠিক সেই রকম টিভির অপরপ্রান্তে থাকা মানুষেরাও তার বক্তব্য শুনে যেন এই যুবতীর ভবিষ্যৎ বলে দেন।

একুশের মঞ্চে এমন ঝাঁঝালো মন্তব্যে সবার নজর কেড়ে নেওয়ার পর দলও তাকে হতাশ করেনি। প্রেসিডেন্সির এই প্রাক্তনীকে নতুন নতুন দায়িত্ব দেয় দল। এর পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গায় আয়োজিত সভাতে তার ডাক পড়তে দেখা যায়। অন্যদিকে বাংলার বহু যুবকদের ক্রাশ হতে দেখা যায় রূপে লক্ষ্মী গুণে সরস্বতী রাজন্যায়। তবে এই সকল ক্রাশদের এবার মাথায় হাত পড়ল।

হঠাৎ লাইমলাইটে উঠে আসা রাজন্যার ক্রাশ হয়ে ওঠা যুবকদের মাথায় হাত এই কারণেই পড়বে, কারণ জানা যাচ্ছে রাজন্যার বিয়ের জন্য আংটি বদল হয়ে গেছে। মাস কয়েক আগেই রাজন্যা তার হবু বরের সঙ্গে আংটি বদল সেরে ফেলেছেন। আশা করা হচ্ছে এবার খুব তাড়াতাড়ি তারা দুজনে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে পারেন। এই খবরটি জানার পাশাপাশি প্রশ্ন হল রাজন্যার হবু বর কে?

আরও পড়ুন 👉 Rajanya Halder: একুশের মঞ্চ কাঁপানো রাজন্যা রাজনীতিতে কোণঠাসা! এবার আসছেন নতুন ভূমিকায়, দেখা যাবে সিনেমায়

রাজন্যা হালদারের হবু বর একজন বড় তৃণমূল নেতা। তিনি এখন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি। ২০২১ সাল থেকে তিনি এই পদে রয়েছেন। তার পড়াশোনা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি হিউম্যান রিসার্চ নিয়ে এমবিএ করেছেন। এর পাশাপাশি তিনি পেশাগতভাবে বিভিন্ন কলেজের সঙ্গে যুক্ত। তবে এসব ছাড়াও তিনি একজন সিনেমার নির্মাতা। তার সিনেমাতেই রাজন্যা হালদার অভিনয় করে অভিনয় জগতে পা রাখতে চলেছেন।

রাজন্যা হালদারের হবু বর হলেন সুপুরুষ প্রান্তিক চক্রবর্তী, এমনটাই জানা যাচ্ছে বিভিন্ন সূত্রে। প্রান্তিক চক্রবর্তীর ‘১৯৪৫ : বিহাইন্ড দ্য মাউন্টেনস’ সিনেমায় মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাজন্যা। এই সিনেমাটি মুক্তি পাবে আগামী ২৬ জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন। স্বাধীনতা আন্দোলন নিয়ে এই সিনেমা তৈরি করা হয়েছে। সিনেমাটি তৈরি করা হয়েছে পুতলি তামাংয়ের জীবনী নিয়ে। পুতলি তামাংয়ের ভূমিকাতেই দেখা যাবে রাজন্যাকে। যদিও এই সিনেমা পুতলি তামাংয়ের বায়োপিক বলতে রাজি নন সিনেমা নির্মাতা প্রান্তিক চক্রবর্তী এবং মুখ্য চরিত্রের রাজন্যা হালদার।