বিজ্ঞাপন

সুখবর, আর দুঃখ নয়, রাজ্যের কৃষকদের জন্য কোটি কোটি টাকা ছাড়লেন মমতা

বিজ্ঞাপন

নিজস্ব প্রতিবেদন : মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Bandopadhyay) রাজ্যের শাসনে আসার পর রাজ্যের বাসিন্দাদের জন্য নানান ধরনের প্রকল্প চালু করেছেন। সেই সকল প্রকল্পের মধ্য দিয়ে রাজ্যের কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হন। রাজ্যের বাসিন্দাদের কেউ এই সকল প্রকল্পের মধ্য দিয়ে নগদ টাকা পেয়ে থাকেন আবার কেউ স্বাস্থ্য থেকে শুরু করে অন্যান্য পরিষেবা পেয়ে থাকেন। এসবের মধ্যেই এবার মুখ্যমন্ত্রী কৃষকদের (Farmer) জন্য সুখবর দিলেন।

কৃষকরা এমন এক পেশার সঙ্গে যুক্ত যাতে করে তাদের উপর নির্ভর করে থাকেন অন্যান্যরা। তাদের হাত দিয়ে সোনার ফসল না ফললে অন্যান্যদের পেটে অন্ন টুকু যাবে না। তবে এই সকল কৃষক যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে সোনার ফসল ফলাচ্ছেন তাদের দুর্গতিরও শেষ নেই। প্রকৃতির কোপে পড়ে তারা হামেশাই ক্ষতির সম্মুখীন হন। এই বছর যেমন ফসল ফলানোর মরসুমে পর্যাপ্ত বৃষ্টির অভাব দেখা দিয়েছিল। যে কারণে বহু কৃষক ফসল ফলাতে না পেরে ক্ষতির সম্মুখীন।

বিজ্ঞাপন

সঠিক সময়ে বৃষ্টির অভাবে ফসল ফলাতে না পেরে ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া এই সকল কৃষকদের এখন দুঃখের শেষ নেই। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওই সকল কৃষকদের কথার মাথায় রেখে পুজোর আগেই বড় ঘোষণা করে দিলেন। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘোষণায় কৃষকদের দুঃখ কষ্ট অনেকটাই লাঘব হবে বলে আশা করা হচ্ছে। কেননা কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য মুখ্যমন্ত্রী কোটি কোটি টাকা ছাড়ার ঘোষণা করেছেন।

বিজ্ঞাপন

কৃষকদের এমন দুঃখ কষ্টের কথা মাথায় রেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ২ লক্ষ ৪৬ হাজার কৃষক যারা বৃষ্টির অভাবে ধান বুনতে পারেননি তাদের পাশে দাঁড়াবে রাজ্য সরকার। তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ১৯৭ কোটি টাকার ছাড়া হচ্ছে। এই টাকা কৃষকদের দেওয়া হবে বাংলা শস্য বীমা প্রকল্পের মাধ্যমে। ১৯৭ কোটি টাকার যে ফান্ড দেওয়া হচ্ছে তা পুরোপুরি রাজ্য সরকারের বলেও দাবি করেছেন তিনি।

একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুরাতন প্রসঙ্গ টেনে জানিয়েছেন, ২০১৯ সালে এই স্কিম চালু করার পর থেকে এখনো পর্যন্ত রাজ্য সরকার কৃষকদের পিছনে ২৪০০ কোটি টাকা খরচ করেছে। ৮৫ লক্ষ কৃষকের পিছনে এই বিপুল পরিমাণ টাকা খরচ করা হয়েছে। আগামী দিনেও এই প্রকল্পের মধ্য দিয়ে কৃষকদের হাতে ক্ষতিপূরণ তুলে দেওয়ার বন্দোবস্ত জারি থাকবে।