Vehicle Speed Limit: ২৫ না ৫০, লোকালে কত গতিবেগে গাড়ি চালানো উচিত! জানেন খুব চালকরা

What should be the Vehicle Speed Limit in the local area: ভারতের প্রতিটি হাইওয়ে বা এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ি চালাতে গেলে গাড়ি চালকদের একটি নির্দিষ্ট স্পিড লিমিট (Vehicle Speed Limit) মেনে চলতে হয়। নির্দিষ্ট গতিবেগের উপর উচ্চগতিতে গাড়ি চালালে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকে বলেই গতিবেগের একটি নির্দিষ্ট সীমারেখা নির্ধারণ করা থাকে। সে ক্ষেত্রে হাইওয়ে বা এক্সপ্রেসওয়ে গুলির ক্ষেত্রে স্পিড লিমিট থাকে ঘন্টা প্রতি ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার। সরকার বিভিন্ন রাস্তার জন্য বিভিন্ন ধরনের সর্বোচ্চ গতিবেগ নির্ধারণ করে রাখলেও স্থানীয় রাস্তার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সীমারেখা নির্ণয় করেনি। তবে অতিরিক্ত স্পিড লিমিটে কখনোই স্থানীয় রাস্তাতেও গাড়ি চালানো উচিত নয়। সে ক্ষেত্রে পড়তে হবে বিপদে। দেখে নিন ভারতের বিভিন্ন স্থানে গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে গতিবেগের কোন সীমারেখা মেনে চলা উচিত।

কোন রাস্তায় গাড়ির গতি কেমন থাকা উচিৎ

১)এক্সপ্রেসওয়ে:- বর্তমানে আমাদের দেশে ৬ এবং ৮ লেনের এক্সপ্রেসওয়ে গুলির জন্য সর্বোচ্চ গতি (Vehicle Speed Limit) নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে প্রতি ঘন্টায় ১২০ কিলোমিটার। তবে জনসংখ্যার উপর ভিত্তি করে রাস্তায় এমন কিছু পয়েন্ট করা থাকে যেখানে এই গতিবেগ কমাতে হয়।

২) কেন্দ্রীয় সড়ক:- ভারতের কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রকের তরফ থেকে ২০১৮ সালে ৪ অথবা ৬ লেনের হাইওয়ের জন্য সর্বোচ্চ ১০০-১১০ কিমি প্রতি ঘণ্টায় গাড়ির গতিবেগের সীমা (Vehicle Speed Limit) নির্ধারণ করা হয়েছে। হাইওয়ের ক্ষেত্রেও স্থানীয় জনসংখ্যা অনুযায়ী কমবেশি হয় এই গতি।

আরও পড়ুন 👉 Car Safety: আচমকা গাড়ির ব্রেক ফেল! কীভাবে করবেন কন্ট্রোল

৩) হাইওয়ে:- স্থানীয় অঞ্চলের ক্ষেত্রে আবার গাড়ির আসন সংখ্যা ৯ বা তার বেশি হলে ১০০ কিমি প্রতি ঘন্টায় গাড়ি চালানো যায়। ৪ লেন হাইওয়েতে ঘন্টায় ৯০ কিমি এবং মিউনিসিপাল অঞ্চলে অবস্থিত রাস্তাগুলোর জন্য ঘন্টায় ৬০ কিমি বেগে গাড়ি চালানো যায়।

৪) স্থানীয় রাস্তা:- স্থানীয় এলাকাগুলি যেখানে লোকজন বেশি চলাচল করেন এবং বিদ্যালয় বা হাসপাতাল ইত্যাদি থাকে সেখানে এলাকা ভিত্তিতে ঘন্টা প্রতি ২৫ থেকে ৩০ কিলোমিটার বেগে গাড়ি চালানোর (Vehicle Speed Limit) পরামর্শ দেওয়া হয়। স্থানীয় এলাকা দিয়ে অধিক গতিতে গাড়ি চালালে অর্থাৎ নিয়ম ভঙ্গ করলে বাইক চালকদের জন্য ১ হাজার টাকা এবং গাড়ি চালকদের জন্য ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।