Tata Food Delivery: ফুড ডেলিভারি দুনিয়ায় বড় এন্ট্রি টাটাদের, রাতের ঘুম উড়ল জোম্যাটো, সুইগির

নিজস্ব প্রতিবেদন : ভারতীয় নাগরিকদের মধ্যে দিন দিন বাড়িতে বসে খাবার সহ অন্যান্য জিনিসপত্র ক্রয় করার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাড়িতে বসে খাবার সহ অন্যান্য জিনিসপত্র ক্রয় করার প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে বিভিন্ন হোম ডেলিভারি দেওয়া সংস্থার ব্যবসা। এমন পরিস্থিতিতে গ্রাহকদের মধ্যে ব্যাপক চাহিদা দেখে এবার টাটাদের (Tata Group) তরফ থেকেও ফুড ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবসা শুরু করা হতে চলেছে।

টাটাদের তরফ থেকে ফুড ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবসায় (Tata Food Delivery) নামা হোম ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবসার ক্ষেত্রে বড় এন্ট্রি বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ। পাশাপাশি তাদের তরফ থেকে এইভাবে ফুড ডেলিভারি দেওয়ার ব্যবসা শুরু হলে রীতিমত চাপে পড়বে জোম্যাটো, সুইগির মতো সংস্থা। ফুড ডেলিভারির বাজারে টাটাদের এমন এন্ট্রি রাতের ঘুম ওড়াবে অন্যান্য সংস্থার বলেই মনে করা হচ্ছে।

বাড়ি বাড়ি অর্ডার করা খাবার পৌঁছে দেওয়ার জন্য টাটা গোষ্ঠী ওপেন নেটওয়ার্ক ফর ডিজিটাল কমার্স (ONDC) প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে পরিষেবা দেবে। এই পরিষেবা পাওয়া যাবে টাটার TATA Neu অ্যাপের মাধ্যমে। সংস্থা সূত্রে যা জানা যাচ্ছে তাতে, আগামী দিন কয়েকের মধ্যেই তাদের ফুড ডেলিভারি দেওয়ার কাজের ট্রায়াল রান শুরু হয়ে যাবে। ট্রায়াল রান শুরু হওয়ার ২৮ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে শুরু হয়ে যাবে পরিষেবা।

আরও পড়ুন 👉 Tata Group Starbucks: আম্বানি, আদানিরা শুধু দেখবে, টাটারা করে দেখাবে! ভারতে কফি স্টোর নিয়ে বিশাল পদক্ষেপ টাটাদের

সংস্থার যে পরিকল্পনা রয়েছে তাতে মনে করা হচ্ছে মার্চ মাসেই টাটাদের তরফ থেকে ফুড ডেলিভারি দেওয়ার কাজ শুরু করে দেওয়া হবে। এমনিতে টাটাদের যে TATA Neu অ্যাপ রয়েছে সেই অ্যাপে গ্রাহকরা পোশাক থেকে শুরু করে মুদিখানার সামগ্রী অর্ডার দিতে পারেন অর্থাৎ ক্রয় করতে পারেন। এবার এই অ্যাপের মাধ্যমে খাবারও অর্ডার করা যাবে। স্বাভাবিকভাবেই সংস্থার এমন সিদ্ধান্তে খুশি গ্রাহকদের বড় অংশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টাটাদের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, সংস্থার তরফ থেকে ফুড ডেলিভারি দেওয়া শুরু হলে আরও জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে TATA Neu অ্যাপের। কোন দিকে এই অ্যাপে এখনো ফুড ডেলিভারি পাওয়া যায়। তবে সেই ফুড ডেলিভারি পাওয়া যায় কেবলমাত্র টাটাদের যে সকল হোটেল রয়েছে সেখান থেকে। এবার এই পরিষেবা পাওয়া যাবে অন্যান্য হোটেলের খাবারের ক্ষেত্রেও। এর পাশাপাশি টাটা গোষ্ঠী এমন পরিষেবা দেওয়া শুরু করলে ৯৬ শতাংশ বাজার ধরে রাখা জোম্যাটো ও সুইগির বড় চাপ হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।