অঙ্কে ফেল করেও সফল IAS অফিসার, অনুপ্রেরণার নাম সইদ রিয়াজ আহমদ

নিজস্ব প্রতিবেদন : জীবনে সাফল্য লাভের পথটি কখনোই মসৃন হয় না। অনেক প্রতিবন্ধকতা আসে সে পথে। কিন্তু লক্ষ্য যদি স্থির থাকে, মনোবল যদি অটুট হয় তাহলে সেই সকল প্রতিবন্ধকতাকে অনায়াসে‌ই তুচ্ছ করা যায়। পরিশ্রম আর অধ্যাবসায়ের মাধ্যমে যে কোনো কঠিন কাজেও সাফল্য লাভ সম্ভব আর এই কথার সবথেকে বড় উদাহরণ হলেন IAS স‌ইদ রিয়াজ আহমদ।

বারো ক্লাসে অঙ্কে ফেল করা ছেলেটিই ইউপিএসসির মত সরকারি চাকরির পরীক্ষায় পাশ করে প্রমাণ করে দিলেন‌ যে, মানুষ চাইলে সবই করতে পারে। অসম্ভব বলে আদপে কিছুই নেই।

জীবনে চলার পথে প্রত্যেককেই কমবেশি ব্যর্থতার সম্মুখীন হতে হয়। দুর্বল মনের মানুষদের কাছে ব্যর্থতা নেতিবাচক প্রভাব ফেলে, আবার স‌ইদ রিয়াজের মত আত্মবিশ্বাসী মানুষের জীবনে ব্যর্থতা আর্শীবাদের মতোই মঙ্গলময় হয়ে ওঠে। ক্লাস টুয়েলভের অঙ্ক পরীক্ষায় ফেল করার পর স‌ইদের শিক্ষক তার বাবা কে বলেছিলেন, “স‌ইদ রিয়াজের দ্বারা কিস্যু হবে না।” তবে ছেলের উপর আত্মবিশ্বাস হারান নি বাবা। শিক্ষক মশাইকে তিনি উত্তর দিয়েছিলেন, “ছেলে নিশ্চয়ই বড় হয়ে বড় কেউ‌ই হবে।”

তার প্রতি বাবার এই আস্থা দেখেই নিজেকে প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন স‌ইদ। বাবার মুখ রাখতে প্রাণপণে খেটেছিলেন, নিজের দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করেছিলেন। অবশেষে সেই চেষ্টায় তিনি সফল হতে পেরেছেন, বাবার সেদিনের বলা কথাকে সত্য প্রমাণ করেছেন।

মহারাষ্ট্রের নাসিকের বাসিন্দা স‌ইদ রিয়াজ আহমদ পুনে ইউনিভার্সিটি থেকে MSC পাশ করবার পর UPSC পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। IAS হ‌ওয়ার লক্ষ্যে তিনি ২০১৪ থেকে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। তবে প্রথমবারেই সফল হননি। ২০১৪, ২০১৫ পরপর দুই বছর প্রিলিমিনারি দিয়েও পাশ করতে পারেননি তিনি। ২০১৬ তে প্রিলিমিনারি ও মেন কোয়ালিফাই করলেও সিলেক্ট হননি তিনি। ২০১৭ তেও অল্পের জন্য অধরাই থেকে গিয়েছিল লক্ষ্যপূরণ। বারবার এরকম ভাবে ব্যর্থ হওয়ার পর একসময় মনোবল হারিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। প্রস্তুতি ছেড়ে দিয়ে অন্য কিছু করবার কথাও ভেবেছিলেন। কিন্তু বরাবরের মতো তখনো ছেলেকে আত্মবিশ্বাস জুগিয়ে গিয়েছেন বাবা। বাবার কথা শুনে নিজেকে আবার‌ও প্রস্তুত করতে শুরু করেন রিয়াজ, কঠোর পরিশ্রমের পর ২০১৮ তে সাফল্য আসে।

UPSC-র প্রস্তুতি নেওয়া ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য স‌ইদের টিপস

১) প্রতিটি বিষয় সম্পর্কে একটি স্বচ্ছ ধারণা তৈরি করে নিতে হবে।

২) বইগুলি বারবার রিভিশন করতে হবে।

৩) এখন পরীক্ষাতে বিশ্লেষণাত্মক দিক‌ও দেখা যাচ্ছে। তাই নিজের বিশ্লেষণী ক্ষমতার দিকেও নজর দেওয়া দরকার।

৪) UPSC-র প্রস্তুতি পদ্ধতিটি পুরোটাই মূল্যবোধের শিক্ষা দেয় তাই মূল্যবোধের উপর ভর করে সাফল্য লাভ করতে হবে।

আরও পড়ুন :

৫) ব্যর্থতা আসবে কিন্তু হাল ছেড়ে না দিয়ে লেগে থাকতে হবে। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমেই একমাত্র UPSC পরীক্ষায় সাফল্য লাভ সম্ভব।